আন্তর্জাতিক  সংবাদ

আন্তর্জাতিক সংবাদ (76)

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের তেলকূপি সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এক বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে গুলি করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে মাতাল অবস্থায় ভারত থেকে অস্ত্রসহ এক বিএসএফ সদস্য বাংলাদেশে এসে ধরা পড়লেও তাকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।বিএসএফের গুলিত নিহত ব্যক্তি চাঁপাইনবাবগরে শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের তেলকূপি লম্বাপাড়ার আইনাল হকের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৫০)।নিহতের পরিবার এবং স্থানীয়রা জানান, শনিবার সকাল ৯টার দিকে সীমান্তের জমিতে ঘাষ কাটতে যান জাহাঙ্গীর। তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। এ সময় কাঁটাতারের কাছাকাছি গেলে তাকে ধরে নিয়ে যায় বিএসএফের সদস্যরা। পরে তাকে মারধরের পর হত্যা করে লাশ বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকায় ফেলে রেখে যায়। ইউপি সদস্য মোফাজ্জল হোসেন জাহাঙ্গীরের ঘাষ কাটতে যাওয়ার কথার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বর্ডার থেকে তাকে ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা করে বিএসএফ। এখন তার লাশ বাড়িতে আছে।এ ঘটনায় ৫৯ বিজিবি’র রহনপুর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘ঘটনা আমরা শুনেছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে, সে কিভাবে নিহত হয়েছে।’এর আগে শুক্রবার মাতাল অবস্থায় অস্ত্রসহ ভারতীয় ৪৪ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের আলিপুর ক্যাম্পের সদস্য আসাদ ভোলাহাটের চাঁনশিকারী সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে পতাকা বৈঠকের পর তাকে বিএসএফের নিকট হস্তান্তর করা হয়।

২১ জুন বিশ্বজুড়ে ষষ্ঠ আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালিত হয়েছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল- ‘Yoga at Home-Yoga with Family (বাড়িতে যোগব্যায়াম-পরিবারের সঙ্গে যোগব্যায়াম)। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে এবং জনসমাগমের নতুন নিয়ম অনুসারে আমাদের ঘরে উদযাপন করতে হয়েছে এই দিবসটি। কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদি গত ২১ জুন তাঁর বক্তব্যে আমাদের মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘আন্তর্জাতিক যোগ দিবস আমাদের সংহতির দিন। যোগাভ্যাস আমাদের একত্রিত করে, দূরত্বকে হ্রাস করে। আমাদের বাড়ির সীমানা থেকে যোগের মাধ্যমে আমরা নিজের সঙ্গে, পরিবারের সঙ্গে এবং সারা বিশ্বের মানুষের সঙ্গে যুক্ত হতে পারি এবং একটি অনন্য অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে পারি।আজ যখন বিভিন্ন দেশ ও জনগণ কভিড ১৯-এর কারণে সৃষ্ট প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েছে, তখন আমরা আরও বেশি করে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের গুরুত্ব উপলব্ধি করছি। এর ফলে অনেকেই যোগ এবং আয়ুর্বেদের মতো প্রাচীন উপকারী অনুশীলনের দিকে ঝুঁকেছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো, বিপাক ক্রিয়া জোরদার করা এবং শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতা থেকে নিজেকে রক্ষা করা—এগুলো সবার জন্য মূল উদ্বেগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন যোগিক আসনগুলো সুপরিচিত। প্রাণায়ামের মতো শ্বাস-প্রশ্বাসের কৌশলগুলো শ্বসনতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। এই কৌশলগুলো এবং যোগাসনগুলোর নিয়মিত অনুশীলন রোগের বিরুদ্ধে কার্যকরভাবে লড়তে সহায়তা করতে পারে। ভারসাম্য এবং সামগ্রিক জীবনযাত্রা মূলত যোগের অন্যতম মূল ধারণা। এটি আধুনিক জীবনযাপনের চাপ থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে। যোগব্যায়াম আমাদের জীবনের বিভিন্ন প্রতিকূলতাকে আত্নবিশ্বাসের সঙ্গে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের মানসিক এবং শারীরিকভাবে স্থিতিশীল করে।যোগের এই উপকারিতাগুলোর স্বীকৃতি হিসেবে, জাতিসংঘ ২০১৪ সালে ২১ জুনকে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ঘোষণা করে। প্রতি বছর যোগের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বাংলাদেশ হাজার হাজার মানুষ দিবসটি উদযাপনের জন্য ভারতীয় হাই কমিশনের অনুষ্ঠানে শামিল হয়। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম নানা রঙের ম্যাট বিছিয়ে বর্ণিল হয়ে উঠে। গত বছর আমাদের এই উদযাপনে অংশ নিয়েছিলেন মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, মাননীয় রেলমন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন এবং মাননীয় নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, বাংলাদেশের অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিসহ ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ।                  এ বছরও, আমরা সারা বাংলাদেশজুড়ে যোগব্যায়ামের প্রতি মানুষের উত্সাহ দেখে অভিভূত হয়েছি। ভারত সরকারের আয়ুষ মন্ত্রণালয় ‘আমার জীবন আমার যোগ’ নামে একটি অনলাইন ভিডিও ব্লগিং প্রতিযোগিতা শুরু করে। প্রতিযোগিতার বাংলাদেশ সংস্করণ—‘আমার জীবন আমার যোগ-বাংলাদেশ’-এ আমরা অনেক প্রতিযোগী পেয়েছি যারা যোগব্যায়াম এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার গভীর আগ্রহ পোষণ করেছে। ভারতীয় হাইকমিশন সাতদিনের একটি অনলাইন যোগ কর্মশালার পাশাপাশি বাংলাদেশের যোগভ্যাসকারীদের জন্য একজন প্রশিক্ষকের নেতৃত্বে প্রাণায়াম ও ধ্যান প্রশিক্ষণের আয়োজন করেছিল।যে কোনো প্রতিকূলতায় ভারত সবসময় বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছে। আমাদের সরকার এবং জনগণ কভিড-১৯  দ্বারা সৃষ্ট প্রতিকূলতার বিরূদ্ধে দৃঢ়তার সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন। ভারত এবং বাংলাদেশ কভিড-১৯ মোকাবিলায় বিভিন্ন অনলাইন দক্ষতা বৃদ্ধির কোর্সের মাধ্যমে সর্বোত্তম অনুশীলনগুলো ভাগ করে নিচ্ছে। শুধুমাত্র এই সপ্তাহেই কভিড ব্যবস্থাপনার বিভিন্ন বিষয়ে তিনটি কোর্স পরিচালিত হচ্ছে। এই দক্ষতা বৃদ্ধির কোর্সগুলো আমাদের প্রথম সারির স্বাস্থ্যকর্মীদের একে অপরের কাছ থেকে শিখতে এবং কভিড-১৯  এর বিরূদ্ধে দৃঢ়ভাবে লড়তে সহায়তা করবে। নাগরিক হিসেবে আমাদের সম্মুখ যোদ্ধাদের সহায়তা করার সর্বোত্তম উপায় হলো নিজেকে সুরক্ষিত এবং সুস্থ রাখা।যোগব্যায়াম আমাদের একটি স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার দিকে নিয়ে যায়। যে কেউ যোগাভ্যাস করতে পারেন। যোগাভ্যাসই পারে একটি স্বাস্থ্যকর পৃথিবী এবং ভারসাম্যপূর্ণ জীবনের সন্ধানে মানবতাকে ঐক্যবদ্ধ করতে। মাননীয় তথ্যমন্ত্রী মো. হাছান মাহমুদ ৬ষ্ঠ আন্তর্জাতিক যোগ দিবসে তাঁর বার্তায় উল্লেখ করেছেন যে, আমরা যোগের মাধ্যমে স্বাস্থ্যকর এবং সমৃদ্ধ ভবিষ্যত্ নির্মাণ করতে পারি। প্রকৃতপক্ষে, কেবল আমাদের নিজের স্বাস্থ্যের উন্নতি নয়, বরং আমাদের প্রিয়জনদেরও খেয়াল রাখা এখন সময়ের দাবি। যোগব্যায়াম, সচেতন ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের মতো সহজ কাজগুলোর মাধ্যমে আমরা নিজেকে এবং আমাদের পরিবারকে রক্ষা করতে পারি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, আমাদের প্রত্যেকের আন্তরিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা সফল হব এবং বিজয় লাভ করব।

Last modified on Saturday, 04 July 2020 00:51

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ইসরায়েলকে তার সার্বভৌম এলাকা জুডিয়া, সামেরিয়া এবং জর্ডান উপত্যকা পর্যন্ত না বাড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। বুধবার হিব্রু ভাষায় প্রকাশিত ইসরায়েলি দৈনিক ইয়েদিট আহরনট প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে একথা জানানো হয়েছে।নিজেকে একজন ইসরায়েলের অনুরাগী হিসাবে অভিহিত করে বরিস জনসন বলেন, ইসরায়েল যদি তার সার্বভৌম এলাকা বাড়ানোর পরিকল্পনা থেকে সরে না আসে তবে সেটা হবে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।তিনি বলেন, 'আমি গভীরভাবে আশা করি যে ইসরায়েল তার সংযুক্তি আর বাড়াবে না। যদি উভয় পক্ষের সম্মতি ছাড়া ইসরায়েল একতরফা ভাবে সীমানা বৃদ্ধি করে তাহলে লন্ডন ১৯৬৭ সালের সীমানার বাইরের অতিরিক্ত অংশকে স্বীকৃতি দেবে না।'জনসন বলেন, আমাদের এখন এই মুহুর্ত সমস্যাটির সমাধানে আরো জোরালোভাবে আলোচনার টেবিলে ফিরে আসতে হবে এবং যৌক্তিক সমাধান খুঁজতে হবে।তবে ফিলিস্তিনিদের ইসরায়েলের সঙ্গে আলোচনায় বসার প্রস্তাব নাকচ করার বিষয়টি বরিস জনসন তার বক্তব্যে উল্লেখ করেননি।পয়লা জুলাই ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের ৩০ শতাংশ জমি অধিগ্রহণ করার লক্ষ্যে একটি বড় পদক্ষেপ নিতে যাবেন বলে আগেই জানা গেছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শান্তি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত এই চাল সারা বিশ্বজুড়ে নানামুখী প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে৷ফিলিস্তিনের পক্ষে থাকা আরব লীগও জানিয়েছে আন্তর্জাতিক আইনের তোয়াক্কা না করে ইসরায়েলের এই অধিগ্রহণ পদক্ষেপ বাস্তবায়িত হলে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে ধর্মীয় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়বে। ইসায়েল এই অধিগ্রহণের পথে অনড় থাকলে ব্যাপক গণ্ডগোল বাধতে পারে৷

Last modified on Wednesday, 01 July 2020 14:28

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানকে সতর্ক করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যদি যুদ্ধ শুরু হয়, তাহলে ইরান ধ্বংস হয়ে যাবে। রবিবার এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘ইরান যদি যুদ্ধ চায়, তাহলে সেটি হবে ইরানের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি।’ তিনি আরো বলেন, ইরান যেন আর কখনো যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি না দেয়।এর আগে একই দিন সৌদি আরবও ইরানকে হুঁশিয়ার করেছিল। ইরান যুদ্ধ চাইলে তারা সর্বশক্তি দিয়ে জবাব দিতে প্রস্তুত এবং যুদ্ধ এড়ানো ইরানের ওপরই নির্ভর করছে বলে জানিয়েছিল তারা।সম্প্রতি উপসাগরীয় অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র অতিরিক্ত যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে। কয়েক দিন আগেই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চায় না। কিন্তু এখন ট্রাম্পের বক্তব্যে সেখান থেকে সরে আসার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। ট্রাম্পও বলেছিলেন যে তিনি আশা করেন ইরানের সঙ্গে কোনো যুদ্ধ হবে না। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফও বলেন, যুদ্ধের কোনো সম্ভাবনা নেই।যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানের যুদ্ধ লেগে যাওয়ার সম্ভাবনায় এরই মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান আগামী ৩০ মে মক্কায় এক জরুরি বৈঠকে বসার জন্য আরব লীগ ও উপসাগরীয় দেশগুলোর জোট জিসিসি সদস্যদের আমন্ত্রণ পাঠিয়েছেন।সৌদি বার্তা সংস্থা এসপিএ সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে জানায়, ‘সংযুক্ত আরব আমিরাতের সমুদ্রসীমায় (সৌদি) বাণিজ্যিক জাহাজে হামলা এবং সৌদি আরবের মধ্যে দুটি তেলক্ষেত্রে হুতি সন্ত্রাসীদের হামলার’ পরিপ্রেক্ষিতে এই জরুরি বৈঠক ডাকা হয়েছে।ট্রাম্প ইরানের সঙ্গে করা পরমাণু চুক্তি থেকে একতরফাভাবে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকেই দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বাড়ছে। যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে গেলেও চীন, রাশিয়া, ব্রিটেন ও ফ্রান্স এখনো ইরানের সঙ্গে করা চুক্তি বজায় রেখেছে। বিবিসির প্রতিরক্ষাবিষয়ক বিশ্লেষক জনাথন মার্কাস বলছেন, ট্রাম্প এখন চান ইরানের সঙ্গে করা এই পরমাণু চুক্তি পুরোপুরি ভেস্তে যাক।ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে, তার ফলে ইরানের অর্থনীতি দিনে দিনে সংকটে নিমজ্জিত হচ্ছে। এই নিষেধাজ্ঞার মূল উদ্দেশ্য যেন ইরান তাদের তেল অন্য দেশের কাছে বিক্রি করতে না পারে। এ ছাড়া গত মাসে যুক্তরাষ্ট্র ইরানের সবচেয়ে সুসজ্জিত বাহিনী রেভল্যুশনারি গার্ডকে সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী হিসেবে তালিকাভুক্ত করে।

ভারত ও ভুটানের মধ্যে স্বাক্ষর হলো ছয়শ মেগাওয়াটের খোলংছু প্রকল্প। এই চুক্তির ফলে ভারত ও ভুটান পানি বিদ্যুতের দিক থেকে সুবিধা পাবে। ২০২৫ সাল নাগাদ এই চুক্তি সম্পন্ন হবে।একদিকে লাদাখ সীমান্তে চীনের সঙ্গে যখন ভারতের পরিস্থিতি উত্তপ্ত, সে সময় ভুটানের সঙ্গে ভারতের এই চুক্তি স্বাক্ষর কিছুটা হলেও ভারতের পক্ষে কূটনৈতিক সাফল্য বলে মনে করা হচ্ছে।জানা গেছে, ভারত-ভুটান পানি বিদ্যুৎ প্রকল্পটি ৫০-৫০ যৌথ উদ্যোগ হিসেবে নির্মিত হবে।যেহেতু দুই দেশের সরকারের কাছেই পানিবিদ্যুৎ লাভের, সে কারণে মনে করা হচ্ছে এই পানি বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শেষ করার দিকে নজর দেবে উভয় দেশ। ফলে দুই দেশের পারস্পারিক নির্ভরযোগ্যতা যে আরো বাড়বে তা বলার অপেক্ষা থাকে না।ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, খোলংছু হাইড্রো অ্যানার্জি লিমিটেড ভুটানের ড্রুক গ্রিন পাওয়ার কর্পোরেশন (ডিজিপিসি) এবং ভারতের সতলুজ জল বিদ্যুত নিগম লিমিটেড (এসজেভিএনএল) এর একটি যৌথ উদ্যোগ।পূর্ব ভুটানের ত্রিশিয়াংটসে জেলার খোলংছু নদীর তলদেশে এই ছয়শ মেগাওয়াটের প্রকল্পটি অবস্থিত। এর আগে ভুটান সফরকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভুটানে ৮২০ মেগাওয়াট মংডেচু পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্বোধন করেছিলেন।

ছেলেকে সঙ্গে করে থানায় এসে পুলিশের কাছে অপরাধ স্বীকার করতে বাধ্য করেছেন এক বাবা। পুলিশের কাছে ওই তরুণ এক কিশোরীকে ধর্ষণের ব্যাপারে স্বীকারোক্তি দিয়েছে।

জানা গেছে, ১৮ বছর বয়সী জ্যাক ইভান্স ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল। কারণ, ধর্ষণ করার পরেও তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেনি ওই কিশোরী।

কিন্তু দুই মাস পার হওয়ার পর ওই তরুণ মোবাইলে বার্তা পাঠিয়ে তরুণীর কাছে ক্ষমা চায়। আর সেটি দেখে ফেলে ওই ছেলের বাবা। যুক্তরাজ্যের সাউথ ওয়ালেসে রেস্টুরেন্টে কাজ করেন ওই ছেলের বাবা। তিনি নিজের ছেলের অপকর্ম সহ্য করতে না পেরে পুলিশের কাছে যান।

ভুক্তভোগী কিশোরীকে খুঁজে বের করেছে পুলিশ। ইভান্সের বাবা ও সৎ মা চেয়েছেন, ছেলে নিজের দোষ স্বীকার করুক।

ইভানের দাবি, ওই কিশোরীর সঙ্গে অর্থের বিনিময়ে শারীরিক সম্পর্কে জড়ানোর চুক্তি হয়েছিল। তবে শেষ মুহূর্তে এসে সে আপত্তি জানায়। তবে ইভান্স তখন আর কিশোরীর কথা শোনেনি।

বিচারক ট্রাসি লয়েড ক্লার্ক বলেন, ইভান্সের অপরাধ রয়েছে। তার শাস্তি হওয়া দরকার। দুই মাস পর তুমি ভুক্তভোগীর কাছে নিজের অপরাধ স্বীকার করেছ! আর দোষ স্বীকার করানোর জন্য তোমাকে নিয়ে তোমার বাবা-মাকে এখানে হাজির হতে হয়েছে। আর তুমি দাবি করেছ, তুমি অল্প বয়সী নারীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেছ।

ধর্ষণের সময় ইভান্সের বয়স ছিল ১৭ বছর। তবে অভিযোগ ওঠার সময় বয়স ১৮ বছর হয়ে গেছে। নিজের অপরাধ স্বীকার করা এবং বয়স বিবেচনা করে দুই বছরের জন্য শিশু অপরাধী হিসেবে তার সাজা হয়েছে।

রায় ঘোষণার সময় ইভান্সের বাবা জনাথন ইভান্স (৪৭) এবং মা সারাহ মরিস (৪৭) আদালতের বাইরে ছিলেন।

 সূত্র : মিরর

ভারতের মহারাষ্ট্রের ঔরঙ্গাবাদে মালগাড়ির নীচে চাপা পড়ে ৭ শ্রমিকের মৃত্যুর খবরে গোটা দেশ জুড়ে জোর শোরগোল শুরু হয়। সেই আগুনের আঁচ থেকে তারকারাও যে বাদ পড়েননি, তা বেশ স্পষ্ট। ট্রেনের নীচে কাটা পড়ে ৭  শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে এবার ফুঁসে উঠলেন বলিউড অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর।সম্প্রতি ট্যুইটারে এক ব্যক্তি সরকারকে আক্রমণ করেন ৭ শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায়।  শ্রমিক স্পেশাল যেখানে ২ দিন আসার কথা, সেখানে কেন ৯ দিন সময় লাগল বলে প্রশ্ন তোলেন তিনি।  পাশাপাশি, খিদে এবং তৃষ্ণা নিয়ে ট্রেনের তলায় চাপা পড়ে ৭ শ্রমিকের প্রাণ চলে যায় বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। ওই ব্যক্তির ট্যুইটের পরই স্বরা ভাস্কর পালটা মন্তব্য করেন।  তিনি দাবি করেন, 'এটা খুন'। পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু নিয়ে ট্য়ুইট পালটা ট্যুইটে ফের সরগরম হয়ে ওঠে ট্যুইটার। 

ভারতের উত্তর প্রদেশের বাসিন্দা সাফিয়া জাভেদ। ছোট থেকেই ফুসফুসের জটিল অসুখে আক্রান্ত। ফুসফুসের অপারেশন করেও লাভ হয়নি। তবু ডাক্তার ওষুধ আর ইঞ্জেকশনের মধ্যে নিজের জীবন আটকে যেতে দেয়নি সাফিয়া। অক্সিজেন সাপোর্ট নিয়েও পরীক্ষা দিয়ে দশম শ্রেণির পরীক্ষায় তাক লাগানো নম্বর পেয়েছে সাফিয়া জাভেদ। ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, গত পাঁচ বছর ধরে ফুসফুসের অসুখে ভুগছে উত্তর প্রদেশের বরেলির বাসিন্দা সাফিয়া জাভেদ। উত্তর প্রদেশ বোর্ডের দশম শ্রেণির পরীক্ষায় অক্সিজেন সিলিন্ডার সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষায় বসেছিল সে। সেই অবস্থায় পরীক্ষা দিয়েও ৬৯ শতাংশ নম্বর পেয়েছে সাফিয়া। ১৬ বছরের ওই ছাত্রী ড্রয়িং-এ পেয়েছে ৮২, ইংরেজিতে পেয়েছে ৭৭ এবং সমাজ বিজ্ঞানে পেয়েছে ৬৮।পড়াশোনা করতে পারলেই সাফিয়ার শরীর ভালো থাকে বলে জানিয়েছেন তার বাবা। তাঁর তিন সন্তানের মধ্যে সাফিয়াই সবার বড়। দুর্বল ফুসফুসের কারণে নিয়মিত কৃত্রিমভাবে অক্সিজেন সরবরাহ করতে হয় সফিয়াকে। গত কয়েক মাস ধরে অুসুস্থতার কারণে বিছানা ছেড়েই উঠতে পারেনি সাফিয়া। তার মধ্যে সাফিয়ার তাক লাগানো রেজাল্ট রীতিমত সাড়া ফেলে দিয়েছে।নয়ডার একটি বেসরকারি কম্পানিতে কাজ করেন সাফিয়ার বাবা সারভার জাভেদ। পরীক্ষার সময় মেয়ের পাশে থাকতে অফিস থেকে ছুটি নিয়েছিলেন তিনি। গলব্লাডার অপারেশন করার পর থেকেই সাফিয়ার শরীর ভেঙে যায় বলে জানিয়েছেন তিনি। টিউবারকিউলোসিসের জন্য একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিত্সা চলছে তার। মাঝে মাঝেই সাফিয়ার ফুসফুসে পানি ভরে যায়। সাফিয়াকে নিয়মিতভাবে অক্সিজেন সাপোর্টে রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন ডাক্তাররা।জীবনের এই কঠিন লড়াইয়ে সাফিয়ার বাবা-মা যেভাবে তাকে সাহায্য ও অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন, তা সচরাচর দেখা যায় না বলে মন্তব্য করেছেন সাফিয়ার কাকা জাবি আহমেদ। বাবা-মার কারণেই এই লড়াই চালিয়ে যেতে পারছেন বলে মন্তব্য করেছেন সাফিয়াও।এভাবে কতদিন সাফিয়ার ব্যয়বহুল চিকিত্সা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে, তা নিয়ে সন্দিহান তার পরিবারের লোকেরা। পড়াশোনায় ভালো হলেও কতদিন সাফিয়া শারীরিক প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে তা চালিয়ে যেতে পারবে, তা নিয়েও সন্দেহ আছে বলে জানিয়েছেন তার পরিবারের লোকেরা। তবে সাফিয়া সে সব নিয়ে ভাবতে নারাজ। দশম শ্রেণির পর আরো পড়াশোনা করতে চায় সে। শারীরিক কষ্টকে ভুলেই জীবনে নিজের পায়ে দাঁড়াতে বদ্ধপরিকর সাফিয়া।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে কভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের সেবাদানকারী চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের এক মাসের খাবারের বিল ২০ কোটি টাকা কী করে হয়, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আজ সোমবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা জানান।শেখ হাসিনা বলেন, বিরোধীদলীয় উপনেতা ঠিকই বলেছেন–এক মাসে ২০ কোটি টাকা খাবার বিল, অস্বাভাবিকই মনে হচ্ছে। এটি আমরা পরীক্ষা করে দেখছি। এত অস্বাভাবিক কেন হবে? যদি কোনো অনিয়ম হয় আমরা ব্যবস্থা নেব।এর আগে আলোচনায় অংশ নিয়ে সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের হাসপাতালের খাবারের বিল নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এর জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।তিনি বলেন, কভিড-১৯ চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্পূর্ণ সরকারি খরচে হোটেলে থাকা-খাওয়া ও যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে থাকা-খাওয়ায় একমাত্র ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিসাব অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে বলে বিরোধীদলীয় উপনেতা যেটি বলেছেন, এটি স্বাভাবিকভাবেই অস্বাভাবিক মনে হয়। আমরা তদন্ত করে দেখছি, এত অস্বাভাবিক কেন হলো? এখানে কোনো অনিয়ম হলে আমরা তার ব্যবস্থা নেব।

Last modified on Monday, 29 June 2020 13:48

জেনারেল কাশেম সোলায়মানি হত্যায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে ইরানের একটি  আদালত।সোমবার (২৯ জুন) এ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।কয়েক মাস আগে দেশটির সামরিক বাহিনীর অভিজাত শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাশেম সোলেইমানিকে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যার দায়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

ইরানের আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা আইএসএনএ বলছে, ট্রাম্প ছাড়াও আরও দুই ডজনেরও বেশি মার্কিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে খুন এবং সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ এনেছে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইরান।তেহরানের প্রসিকিউটর আলী আলকাসিমেহর বলেছেন, গত ৩ জানুয়ারি ড্রোন হামলা চালিয়ে জেনারেল কাশেম সোলেইমানিকে হত্যার সঙ্গে ট্রাম্প ছাড়াও আরও ৩০ জনের বেশি মার্কিন কর্মকর্তা জড়িত। তাদের বিরদ্ধে খুন এবং সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয়েছে।ট্রাম্প ছাড়া অন্য অভিযুক্তদের শনাক্ত করা হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে জানাতে পারেননি আলকাসিমেহর। তবে ইরানি এই প্রসিকিউটর জোর দিয়ে বলেছেন যে, ট্রাম্পের ক্ষমতার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও তারা এই মামলা চালিয়ে যাবেন।

এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে ফ্রান্সের লিঁওভিত্তিক পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোলের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। আলকাসিমেহর বলেন, ট্রাম্প এবং অন্যদের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করতে ইন্টারপোলের কাছে অনুরোধ জানিয়েছে ইরান।

সূত্র- আল জাজিরা।

 

Last modified on Monday, 29 June 2020 13:15
  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular