October 5, 2022
Sunday, 11 September 2022 02:19

পইলে বিএনপির উঠান বৈঠকে জি কে গউছ ॥ ক্ষমতা হারানোর ভয়ে মন্ত্রীদের মাথা ঠিক নেই Featured

✍ হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও টানা ৩ বারের নির্বাচিত হবিগঞ্জ পৌরসভার পদত্যাগকারী মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন- আওয়ামীলীগ জনগণের ভোটে নয়, পুলিশের ভোটে রাষ্ট্র ক্ষমতায়। এ জন্যই দেশে নজিরবিহীন লোডশেডিং, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি। আওয়ামীলীগের দুঃশাসনের কারনেই দেশের মানুষকে ২শ টাকা লিটার তেল, ৩শ টাকা কেজি পিয়াজ খেতে হয়। তাই দেশকে ভালোবেশে, নিজের প্রয়োজনে আমাদেরকে কথা বলতে হবে। আওয়ামীলীগের পতন নিশ্চিত করতে হলে ভয়কে জয় করে রাজপথে নামতে হবে।তিনি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও দেশনায়ক তারেক রহমানের সু-স্বাস্থ্য এবং দীর্ঘায়ু কামনায় সকলের দোয়া কামনা করেন। তিনি কারাবন্দি দেশের সকল আলেম-উলামাদের মুক্তির দাবী জানান। তিনি গতকাল শনিবার বিকালে সদর উপজেলার ৪নং পইল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে এক উঠান বৈঠকে এসব কথা বলেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনাভোটের আওয়ামী সরকারের কবল থেকে মুক্তি ও জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।জি কে গউছ আরও বলেন- ক্ষমতা হারানোর ভয়ে আওয়ামীলীগের মন্ত্রীদের মাথা ঠিক নেই। আওয়ামীলীগের এক মন্ত্রী বলেন বাংলাদেশের মানুষ বেহেশতে আছে। আরেকমন্ত্রী বলেন তাদের নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে যেন আল্লাহ জাহান্নামে ভাল জায়গায় রাখেন। তিনি বলেন- পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে বিএনপির উঠান বৈঠকে যে মানুষ হয় তা আওয়ামীলীগের জনসভায়ও হয় না। আওয়ামীলীগ একটি জনবিচিছন্ন রাজনৈতিক দল। জনগণ আওয়ামীলীগের সাথে নেই। আওয়ামীলীগের সভায় চেয়ার থাকে, বসার মানুষ থাকে না। মানুষের অভাবে আওয়ামীলীগের সভা বাতিল করতে হয়। এর কারণ আওয়ামীলীগের দুঃশাসন। ১০ কেজি চাল, বিনামূল্যে সার, আর ঘরে ঘরে চাকুরী দেয়ার কথা বলে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় গিয়ে জনগণের সাথে প্রতারণা করেছে। দেশের মানুষকে ২শ টাকা লিটার তেল ক্রয় করতে হচ্ছে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে মানুষ আজ দিশেহারা। মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোতে চলছে বোবা কান্না। কিন্তু জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলেই জনগণের প্রতি আওয়ামীলীগের কোন দায়-দায়িত্ব নেই। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় গিয়ে জনগণের সকল মৌলিক অধিকার হরণ করেছে। দেশের গণতন্ত্র হত্যা করে মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। আওয়ামীলীগ পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবহার করে দিনের ভোট রাতেই সম্পন্ন করেছে। জি কে গউছ বলেন- জনগণ দেশের সকল ক্ষমতার উৎস। জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সম্মান করতে পুলিশ বাধ্য। কিন্তু বিনাভোটে নির্বাচিত আওয়ামীলীগের জনপ্রতিনিধিদের পুলিশ কনস্টেবলও সম্মান করে না। সভা-সমাবেশে যখন আওয়ামীলীগ এমপিরা বলেন আমি আপনাদের ভোটে নির্বাচিত এমপি, পুলিশ সদস্যরা তখন হাঁসে।সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আজম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সদর উপজেলা বিএনপি নেতা এস এম মানিকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সদস্য মহিবুল ইসলাম শাহিন, সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সামছুল ইসলাম মতিন, এডভোকেট আফজাল হোসেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুর রহমান সিতু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম কাওছার, বিশিষ্ট মুরুব্বি হাজী আব্দুর রহিম।সভায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় বিএনপি নেতা ফরিদ মিয়া, বাবর আলী, মস্তোফা মিয়া, আব্দুল মন্নাফ, আবুল কালাম, আব্দুস সোবহান, নুরুল আমিন, শামীম আহমেদ, মস্তোফা জামান, আজগর আলী, এনাম মিয়া, সুমন মিয়া, সফিক মিয়া, মাসুক মিয়া, লোকমান মিয়া, জুমন আহমেদ, জামাল মিয়া, মিজান মিয়া, আব্দুস সালাম, শাহজাহান মিয়া, ফয়সল আহমেদ, মোঃ আলাউদ্দিন, ফজলুল হক, আইয়ুব আলী, রিপন আহমেদ, রফিক মিয়া প্রমুখ।

Read 116 times
Rate this item
(0 votes)
Login to post comments
  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular