October 7, 2022
নবীগঞ্জের সংবাদ

নবীগঞ্জের সংবাদ (1787)

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড নবীগঞ্জ শাখার নতুন জায়গায় স্থানান্তর উপলক্ষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকাল ১১ টায় তাহসিন প্লাজায় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এর নবীগঞ্জ শাখার ব্যাবস্থাপক মুহিত রঞ্জন ভট্টাচার্য্য সভাপতিত্বে সহকারী একাউন্ট অফিসার আব্দুল্লাহ আল মজুমদার রাজুর পরিচালনায় দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নবীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব ছাবির আহমদ চৌধুরী, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এর সিলেট বিভাগীয় প্রধান আমিনুল হক চৌধুরী,নবীগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র অধ্যাপক  তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী, তাহসিন প্লাজার স্বত্বাধিকারী  বিশিষ্ট্য সমাজ সেবক অধ্যাপক আব্দুল হান্নান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি  অধ্যাপক মুজিবুর  রহমান,বিশিষ্ট  সমাজ সেবক সাহেদুর রহমান চৌধুরী সাফি, বীর মুক্তিযোদ্ধা  আব্দুল মুনিব চৌধুরী, হিরা মিয়া গালর্স হাই স্কুলের  সাবেক প্রধান  শিক্ষক এটিএম বশির আহমদ,প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি শামীম আহমদ চৌধুরী, নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলমগীর মিয়া, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এর অফিসার মোঃ আব্দুল আজিজ,বিদ্যুৎ রায়,সালাউদ্দিন কাদের, মাহফুজ আহসান সরদার, নাঈম মোহাম্মদ রেদুয়ান,দেবজিত পাল, মাহফুজুল ইসলাম,অনিক কর সাংবাদিক মোঃ হাসান চৌধুরী, সাগর মিয়াসহ ব্যাংকের গ্রাহক সহ এলাকার বিশিষ্ট জনরা। আলোচনা শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

নবীগঞ্জে পূর্ব  বিরোধের জের ধরে মিথ্যা ইভটিজিংয়ের নাটক সাজিয়ে প্রতিপক্ষর লোককে ফাসানোর ঘটনায়  এলাকা তোলপাড় চলছে।  এই  মিথ্য ইভটিজিংয়ের নাটকে এলাকায়  মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। খোঁজ  নিয়ে জানাযায়, কুর্শি ইউনিয়নের  বাংলা বাজার নামক স্থানে  ইভটিজিং নাটকের  মুলহুতা জনৈক ছাত্রী এনাতাবাদ গ্রামের নুনু মিয়ার  লোকজন নাটকীয়  ইভটিজিং  সাজাপ্রাপ্ত  মখলিছ মিয়ার চাচাতো ভাইদের উপর বিগত ২/৩ মাস পূর্বে হামলা চালায়। এ ঘটনায় মখলিছ মিয়ার চাচাতো ভাই মুমিন মিয়া বাদী থানায় ১০ জনকে আসামী করে নবীগঞ্জ  থানায় মামলা দায়ের করেন।  ওই ঘটনার  জনৈক ছাত্রী  পিতা নুনু মিয়া এবং তার ভাই তছু মিয়া ১৯ দিন কারাভোগ করেন।  জামিনে এসে প্রতিপক্ষের  লোককে ফাসোনোর চেষ্টা  লিপ্ত থাকে।  কুর্শি ইউনিয়নের  চেয়ারম্যান সৈয়দ খালেদুর রহমান বিষয়টি নিষ্পত্তি করা চেষ্টা করলে বাদী পক্ষের লোকজন  বিষয়টি  আপোষে দেখবেন না বললে চেয়ারম্যান সহ আসামী বিভিন্ন মামলায় সহ নানা ধরনের ভয়ভীতি  প্রদর্শন করেন। ইতিপূর্বে কোন উপায়  গত সোমবার চেয়ারম্যান কতিথ ইভটিজার কে  জনৈক মেয়ের আপন ভাই মামলার আসামী ছাবির মিয়াসহ কয়েক জন লোক মিলে  ধরে নিয়ে চেয়ারম্যান বাড়ীতে নিয়ে মারধর  করার অভিযোগ রয়েছে। খবর পেয়ে মখলিছ মিয়ার  ভাই আশিক মিয়া, আকলিছ মিয়া ছুটে গিয়ে তার ভাই লোক দিয়ে ধরে আনার কারন জানতে চান। চেয়ারম্যান কোন ব্যাখা দিতে রাজি নন। সকাল থেকে চেয়ারমানের বাড়ীতে মখলিছ মিয়ার নির্যাতনের  খবর এলাকায় ছড়িয়ে বিষয়টি কে অন্যভাবে প্রবাহিত করতে এই ইভটিজিংয়ের নাটক সাজিয়ে তাকে ফাসানো হয়। সহজ সরল প্রকৃতির  লোক মখলিছ মিয়াকে মিথ্যা ইভটিজিং  নাটক  করে ফাঁসানোর  ঘটনায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য অলিউর রহমান বলেন,মকলিছ মিয়া কিছুটা মানসিক প্রতিবন্ধী ,ঠিকমত কথার উত্তরে কথা বলতে পারেনা । ওর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ কষ্ট দায়ক ও বোধগম্য নয় ।

নবীগঞ্জে স্কুলের সামনে রাস্তায় ছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের দায়ে এক যুবককে ১০ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার দুপুরে নবীগঞ্জ উপজেলার কুর্শী ইউনিয়নের সৈয়দ আজিজ হাবিব স্কুলের সামনে রাস্তায় ছাত্রীকে ইভটিজিং করার সময় উপস্থিত জনতা ও স্কুলের কর্তৃপক্ষ  আটক করেন। তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে খবর প্রদান করলে নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন ঘটস্থলে পৌঁছে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচলনা করে ১০ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। এ সময় সহযোগিতা করেন, নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ডালিম আহমেদ,ইউপি চেয়ারম্যান, স্কুলের শিক্ষকবৃন্দসহ থানার একদল পুলিশ।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে উক্ত ঘটনার সাক্ষী ও উপস্থিত ব্যক্তিদের বক্তব্যে সত্য প্রমাণিত হয়। এছাড়া দোষী দোষ স্বীকার করে এবং এরকম আর করবে না মর্মে ক্ষমা চায়। এমতাবস্থায়, সার্বিক পর্যালোচনা করে মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ এর ৭(২) ধারা মতে এনাতাবাদ গ্রামের মৃত আব্দুল সাত্তার মিয়ার পুত্র মসলিছ মিয়া (৩০)কে দোষী সাব্যস্ত করে, দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ৫০৯ ধারার কৃত অপরাধে ১০ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন বলেন,ইভটিজিং রোধে সরকার সবসময়ই কঠোর ।ঘটনার সত্যতা পেয়ে ১০ মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

নবীগঞ্জ-মার্কুলী  আঞ্চলিক সড়কের উপজেলার বড় ভাকৈর (পশ্চিম ) ইউনিয়নের বাউসী পুকুর পাড় এলাকা নামক স্থানে ব্যাটারি চালিত টমটমের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় টমটমের যাত্রী চৌকি গ্রামের মৃত ফনি ভূষণ চক্রবর্তীর পুত্র প্রবোধ চক্রবর্তী ঝন্টু (৫৫) গুরুতর আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে সৈয়দপুর বাজার নামক স্থানে মৃত্যুবরণ করেন।মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করতে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সোমবার সকালে এ মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, প্রবোধ চক্রবর্তী ঝন্টু চৌকি গ্রাম থেকে তার বাড়ীতে ব্যাটারি চালিত টমটম যুগে যাওয়ার জন্য রওনা দেন। পথ্যিমধ্যে বাউশী পুকুর পাড় নামক স্থানে এসে অন্য একটি টমটমের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে।সংঘর্ষের ঘটনায় ঝন্টু গুরুতর আহত হন গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে তিনি মারা যান। নিহতর ঘটনাটি নিশ্চিত করেন, নবীগঞ্জ থানার সাব-ইন্সপেক্টর দুর্গা দেব।


বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী  মাদার অফ ডেমোক্রেসি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও অভিলম্বে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা এবং নিশিরাতের অবৈধ সরকারের লেলিয়ে দেওয়া  পুলিশের গুলিতে নিহত ভোলা জেলা  ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলম এবং  স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আব্দুর রহিমের হত্যার প্রতিবাদে  বিক্ষোভ সমাবেশে করেছে যুক্তরাজ্য বিএনপি। গত ৮ সোমবার ১০ ডাউনিং স্ট্রীটের সামনে এই বিক্ষোভ কর্মসূচীর ডাক দেয় যুক্তরাজ্য বিএনপি। যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালিক এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত এই বিক্ষোভ সমাবেশে  যুক্তরাজ্য বিএনপি, জোনাল কমিটি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী অংশগ্রহণ করেন। উপস্থিত নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড, ব্যানার, ফেস্টুন প্রদর্শন করেন এবং মাদার অব ডেমোক্রেসি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবী  এবং স্বৈরাচারী সরকারের পুলিশের গুলিতে নিহত বিএনপি নেতাদের হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। সভাপতির বক্তবে এম এ মালিক বলেন, “মাদার অফ  ডেমোক্রেসি” বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা  জিয়া আজ গুরুতর অসুস্থ । রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে নিশিরাতের স্বৈরাচারী সরকার সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে মাদার অব ডেমক্রেসি দেশনেত্রীকে কারাবন্দী করে উন্নত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত  করছে । স্বৈরাচারী সরকার পুলিশের উপর ভরসা করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায় কিন্তু  এই দিন শেস হয়ে গেছে। আজ বাংলাদেশ্র আপামর জনগন জেগে উঠেছে। পুলিশের এই বর্বর হত্যাকাণ্ডের বিচার একদিন বাংলাদেশের মাটিতে হবে।  তিনি অনতিবিলম্বে সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশ উন্নত চিকিৎসা ও নি:শর্ত মুক্তি দাবী করেন। সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ  বলেন, স্বৈরাচারী  সরকারের দুর্নীতি, ডাকাতি, হত্যা, লুন্ঠন, ধর্ষণ, অত্যাচার নির্যাতনে দেশের মানুষ আজ দিশেহারা। স্বৈরাচারী সরকারের পতন অতি সন্নিকঠে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণতন্ত্র পূনরুদ্ধার ও  জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।  স্বৈরাচারী সরকারের পুলিশের গুলিতে নিহত বিএনপি নেতাদের হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, নিহত বিএনপি নেতাদের রক্ত বৃথা যাবে না । তিনি অনতিবিলম্বে সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশ উন্নত চিকিৎসা ও নি:শর্ত মুক্তি দাবী করেন।  উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এ সালাম, নির্বাহী সদস্য ব্যারিস্টার মীর হেলাল, যুক্তরাজ্য বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা শায়েস্তা চৌধুরী কুদ্দুস, উপদেষ্টা আব্দুল হামিদ চৌধুরী, সহসভাপতি মুজিবুর রহমান মুজিব, আলহাজ্ব তৈমুছ আলী, তাজুল ইসলাম, ব্যারিস্টার কামরুজ্জামান, সলিসিটর ইকরামুল হক মজুমদার, আতিকুর রহমান চৌধুরী পাপ্পু, আবেদ রাজা, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক পারভেজ মল্লিক, যুগ্ম সম্পাদক ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ খান, খসরুজ্জামান খসরু, মিসবাহুজ্জামান সোহেল, ডক্টর মুজিবুর রহমান, আজমল হোসেন চৌধুরী জাবেদ, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মামুন, নাসিম আহমেদ চৌধুরী, কামাল উদ্দিন, সিলেট মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এমদাদ হোসেন চৌধুরী, ঢাকাদক্ষিণ বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন টিপু, শামসুর রহমান মাহতাব, তাহির রায়হান চৌধুরী পাভেল, আব্দুল বাসিত বাদশা, বাবুল আহমেদ চৌধুরী, সালেহ আহমেদ জিলান, নাজমুল ইসলাম লিটন, এডভোকেট খলিলুর রহমান, টিপু আহমেদ, সহ দপ্তর সম্পাদক সেলিম আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোশাহিদ আলী তালুকদার, যুবদলের সভাপতি রহিম উদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নাসির আহমেদ শাহিন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন, যুক্তরাজ্য বিএনপি’র সদস্য আমিনুর রহমান আকরাম, এম এ সালাম, জাসাসের সাবেক সভাপতি এবাদুর রহমানের এমাদ, সাবেক সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শফিকুল ইসলাম রিবলু, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক এমতিয়াজ এমাম তানিম, সেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক কামাল মিয়া, সমাজ কলান সম্পাদক এ জে লিমন, আব্দুস শহীদ, ব্যারিস্টার আলিমুল হক লিটন, শিবলী শহীদ খোশনবিশ, সহপ্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক এম আরিফ আহমেদ, ইস্ট লন্ডন বিএনপির সভাপতি ফখরুল ইসলাম বাদল, সাধারণ সম্পাদক এস এম লিটন, লন্ডন নর্থ ওয়েস্ট বিএনপির সভাপতি হাজী এম এ সেলিম, সাধারণ সম্পাদক গিয়াস আহমেদ, কেন্ট বিএপির সভাপতি আব্দুল হান্নান, সাধারণ সম্পাদক রুহুল ইসলাম রুলু, লন্ডন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খালেদ চৌধুরী, সহসভাপতি আবুল কালাম আজাদ, মির্জা নিক্সন, নাজমুল হোসেন চৌধুরী, শরিফ উদ্দিন ভুঁইয়া বাবু, পাশা মিয়া, যুবদল নেতা বাকি বিল্লাহ জালাল, আক্তার হোসেন শাহিন, শাহজাহান আলম, বাবর চৌধুরী, জিয়াউল ইসলাম, নুরুল আলী রিপন, সেচ্ছাসেবক দল নেতা জাহাঙ্গীর আলম শিমু, জিয়াউর রহমান জিয়া, আকমল হোসেন, ইব্রাহিম আলী, আশারাফ হোসেন, মসুদ আহমদ, নুর মিয়া,ফজলে রহমান পিনাক,শ্রমিক নেতা আব্দুস সামাদ রাজ, জনি আহমেদ, মোঃ ফয়েজ উল্লাহ প্রমুখ।

নবীগঞ্জে মাকে নির্যাতন করার অভিযোগে আব্দুল আহাদ (২০) নামে এক যুবককে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে মোবাইল কোর্ট। রবিবার (২১ আগস্ট) দুপুরে নবীগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের পূর্ব তিমিরপুর গ্রামে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এ দণ্ডাদেশ প্রদান করেন নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মহিউদ্দিন। দন্ডপ্রাপ্ত আব্দুল আহাদ ওই গ্রামের মৃত আব্দুল রশিকের পুত্র। আব্দুল আহাদ ও তার মা দীর্ঘদিন ধরে পূর্ব তিমিরপুর গ্রামের এক আত্নীয়ের বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- অকারনে প্রতিদিনের মতোই গতকাল রবিবার সকালে আহাদ তার মাকে মারধর ও ঘরবাড়ি ভাংচুর করে। এক পর্যায়ে তাকে প্রাণে হত্যার চেষ্টা করলে তিনি দৌড়ে অদূরে তার মেয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। আহাদ তার পিছু নিয়ে সেখানে গিয়েও তাকে হত্যার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মহি উদ্দিন একদল পুলিশসহকারে ঘটনাস্থলে পৌঁছে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন। মোবাইল কোর্টে তার অপরাধ স্বীকার ও প্রমাণিত হওয়ায় তাকে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। এ সময় নবীগঞ্জ থানার এসআই মুস্তাফিজুর রহমান ও মো. ওয়ারিস,কাউন্সিলর ফজল আহমেদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মহিউদ্দিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।উল্লেখ্য- ইতিপূর্বে কিশোর বয়সে হত্যা মামলায় প্রায় আড়াই বছর কারাভোগ করেছেন আহাদ। কষ্টার্জিত উপার্জনে তার মা তাকে জামিনে মুক্ত করেন।

নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের বেগমপুর গ্রামে একদল প্রভাবশালী লাটিয়াল বাহিনীর হামলায় সংখালুঘু একই পরিবারের ৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ৩ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও বাকী আহতের নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। উল্লেখিত গ্রামে পরিকল্পিত ভাবে শুক্রবার সকালে একই গ্রামের লিটন দাশের ঘর-বাড়িতে দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র সহকারে একদল দূর্বৃত্তরা হামলা চালিয়ে একই পরিবারের ৫ জনকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখমী করে। আহতদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন আহতদের উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুতর আহত লিটন দাশ (৪০), তার স্ত্রী সুমায়া রানী দাশ (৩৫), রতন দাশের স্ত্রী শিখা রানী দাশ (৩০)কে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন৷ অপর আহত রতন দাশ ও তার মাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে৷ আহত সূত্রে জানাযায়, উপজেলার বেগমপুর গ্রামের ছমির উল্লার পুত্র মঈনু দ্দিনের নেতৃত্বে তার বাগনা সাজু, রাজু তাদের বাবা গুল মিয়া তার স্ত্রী আছমা বেগমসহ পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ১৫/২০ জন অস্ত্রধারী লাটিয়াল বাহিনী লিটন দাশের ঘর-বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করে তাদের৷ এসময় আর্তচিৎকারে গ্রামবাসী এসে তাদের কবল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার পরিবারের লোকজন নবীগঞ্জ থানায় ৬ জনের নাম উল্লেখ করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। নবীগঞ্জ থানার সাব ইন্সপেক্টর জাহাঙ্গীর আলম সত্যতার স্বীকার করে বলেন অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানান।

নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের উত্তর দৌলতপুর গ্রামে নানার বাড়ীতে বেড়াতে এসে পরিবারের সকলের অগোচরে পুকুরের পানিতে পড়ে তাছলিয়া আক্তার (২) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে৷ স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের গজনাইপুর গ্রামের মৃত দুলাল মিয়ার স্ত্রী পপি বেগম তার শিশু কন্যা তাছলিয়া আক্তারকে নিয়ে এক সপ্তাহ পূর্বে তার পিতার বাড়ী আউশকান্দি ইউনিয়নের উত্তর দৌলতপুর গ্রামে বেড়াতে আসেন। শনিবার তিনি স্বামীর বাড়িতেও আবার ফিরে যাবার কথা ছিল বলে জানাযায়।এরই মধ্যে শুক্রবার সকাল অনুমান সাড়ে ৯ টার দিকে পরিবারের সকলের অগোচরে শিশুটি বাড়ির নিকটবর্তী পুকুরের পানিতে পড়ে গিয়ে তলিয়ে  যায়৷ এক পর্যায়ে অনেক খোজাখুজির পর পুকুর থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন৷ 

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাম্প্রতিক দেয়া বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে বাংলাদেশ গণ অধিকার পরিষদের আহবায়ক ড. রেজা কিবরিয়া বলেছেন, আওয়ামীলীগের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, কোটিপতি ব্যবসায়ী, ব্যাংকের মালিক এবং ছাত্রলীগ বেহেশতে আছে কিন্তু দেশের সাধারণ মানুষ বেহেশতে নেই। তারা খুব কষ্টে আছে। সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতকে নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তব্যে দুই দেশের সর্ম্পকের অবনতি হবে। বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) বিকেলে নবীগঞ্জ ও বাহুবল উপজেলায় পথসভা শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আমি রাজনীতিতে এসেছি জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দিতে। জনগণের সকল অধিকার প্রতিষ্ঠায় আমরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। এ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসেনি তাই তারা জণগণের কথা চিন্তা করে না। জনগণের প্রতি তাদের কোন দায়বদ্ধতা নেই। তাই তারা নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্রের দাম বাড়িয়ে মানুষের জীবন দুর্বিষহ করে তুলেছে। গুম, খুন এখন তাদের নিত্য দিনের ব্যাপার। তিনি আরো বলেন, আগামী নির্বাচন হবে একটি নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে এবং স্বচ্ছ ব্যালটে। এ সরকার যদি আরো দেড় বছর ক্ষমতায় থাকে তাহলে দেশের অবস্থা শ্রীলংকার চেয়েও ভয়াবহ আকার ধারন করবে।আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে আমরা ৩০০ আসনে প্রার্থী দেব তবে এখনও সেটি চুড়ান্ত হয়নি। এছাড়াও ড. রেজা ২ হাজার আলিম উলামাদের জেল হাজত থেকে মুক্ত করা এবং বেগম খালেদা জিয়ারও মুক্তির দাবিও জানান। এর আগে ড. রেজা কিবরিয়া নবীগঞ্জের আউশকান্দি, সদরঘাট, দেবপাড়া, পানিউমদা, পুটিজুরি, মিরপুর ও বাহুবল বাজারে পথসভায় বক্তব্য রাখেন এবং গণসংযোগ করেন। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গণ অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক চৌধুরী আশরাফুল বারী নোমান, সহ সদস্য সচিব শাহ আজাদ আলী, হবিগঞ্জ গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব আবুল হোসেন জীবন, সহসভাপতি এম এ খালেক, কেন্দ্রীয় সদস্য শাহাবুদ্দিন শুভ, নবীগঞ্জ উপজেলা গণ অধিকার পরিষদের আহবায়ক রজব আলী, সদস্য সচিব নুরুল আমিন পাঠান, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা গণ অধিকার পরিষদের আহবায়ক এম এ রকিব জালাল, সদস্য সচিব জাকারিয়া মিয়া, হবিগঞ্জ জেলা ছাত্র অধিকারের সভাপতি মোহাম্মদ রাসেলসহ আরও অনেকেই।

নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের পাঞ্জারাই গ্রামে মন্দির নিয়ে একটি চক্র পূজাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাধা প্রদান করে আসছে। গতকাল বুধবারে গ্রামবাসীর পক্ষে পাঞ্জারাই গ্রামের মৃত গোবিন্দ শব্দ করের পুত্র উমেশ শব্দ কর ১১ জনের নাম উল্লেখ করে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।অভিযোগ সূত্র জানাযায়, পাঞ্জারাই গ্রামের শ্রী শ্রী দুর্গা মন্দির ও নাট মন্দির নির্মাণে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন প্রয়াত মেজর অবঃ সুরঞ্জন দাশ ও তার ভাতিজা হিরন দাশ ও মিহির দাশ। গ্রামবাসী খুশি হয়ে হিরণ দাশকে মন্দিরের আজীবন প্রধান উপদেষ্টার পদ দিয়ে সম্মাননিত করেন। তাদের অর্থয়ানে ২৮ হাত লম্বা আরেকটি ঘর নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। মন্দিরের যাবতীয় উন্নয়ন কাজের বাহিরের অনুদান সংগ্রহ করেন পাঞ্জারাই গ্রামের শিক্ষক হরিপদ দাশ। পাঞ্জারাই গ্রামে প্রায় ১০০-১৫০ হিন্দু পরিবারের বসবাস। যুগ যুগ ধরে ধর্মপ্রান হিন্দু লোকজন মিলে মিশে সরকারী আচরণ বিধি মেনে বিভিন্ন ধরনের ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করে আসছেন। কখনও কোন বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে মত বিরোধ বা বিশৃংখলা হয়নি। ২০১৬ সাল থেকে শ্রী শ্রী দূর্গা পূজা সহ সকল পূজা একত্রে সুন্দর ভাবে পালন করে আসছিলেন। কিন্তু রঘু রায়, পংকজ ভট্টাচার্য্য, দিবাকর দাশ দিলু, সুখময় দাশগংরা সেটা মেনে নিতে পারে নাই। মন্দিরে পূজা অনুষ্ঠানে রঘু রায়গংরা বিভিন্ন ভাবে বাধা প্রদান করে। পূজায় জড়িত নমসুদ্র সমাজের লোকজন যাতে পূজায় না আসতে পারে রঘু রায় গংরা তাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়া বাধা প্রদান করে আসছে। ১৯ আগস্ট শ্রীকৃষ্ণ জন্মষ্টমী পালনে বাধা প্রদান করবে বলে লোকমুখে প্রচার করে আসছে। বাধা প্রদানের ঘটনায় বাধা প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর পৃথক পৃথক অভিযোগ দায়ের করেন।

  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular