October 5, 2022
Friday, 29 July 2022 02:45

নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে ১৫ দিন ধরে বাস চলাচল বন্ধ

মোঃ হাসান চৌধুরী.

বার্তা সম্পাদক : দৈনিক নবীগঞ্জের ডাক। 

অবৈধ অটো চলাচল ও মালিক-শ্রমিক অনৈক্যকে কেন্দ্র করে নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ রুটে হবিগঞ্জ বাস মালিক সমিতি ১৫ দিন ধরে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী ও সাধারণ যাত্রীরা। এতে চরম দূর্ভোগে পড়েছে নবীগঞ্জের জনসাধারণ। বাস মালিক ও শ্রমিক সমিতির নেতারা বলছেন, সিদ্ধান্তহীনতার কারণে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। জানা যায়, ইলেকট্রিক চালিত অটোরিক্সার জন্য ঠিক মতো গাড়ি চালাতে না পাড়ায় ও কাংঙ্কিত যাত্রী না পাওয়ায় এবং মালিকদের সাথে গাড়ী চালানোর আয়-ব্যয়ের বিরোধকে কেন্দ্র করে গত ১৪ই জুলাই থেকে কোন ধরনের নোটিশ না দিয়ে গাড়ি চালানো বন্ধ করে দেয় বাস শ্রমিক সমিতি। মালিকদের না বলে বাস বন্ধ করে দেওয়ায় দুই পক্ষের টানা পুড়ানে ১৫ দিনেও চালু হয়নি নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ রুটের বাস। এ ঘটনার পর থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয় উভয় সমিতি। এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ যাত্রীরা। ওই রোড দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার যাত্রী আসা-যাওয়া করেন। বাস চলাচল বন্ধ থাকায় গত ১৫ দিন থেকে যাত্রীরা অনেকটা বাধ্য হয়ে সিএনজি টমটম ও অটোরিক্সা যোগে চলাচল করছেন। কয়েক দফা বৈঠকের পরও আপোস মীমাংসা না হওয়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার এ সংবাদ লেথা পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। হঠাৎ করে বাস বন্ধ হওয়ায় দূর্ভোগে পড়েছে জনসাধারণ। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, জজ কোর্ট ও বিভিন্ন অফিস আদালতে আসতে দূর্ভোগে স্বীকার হয়েছে। বাস বন্ধ থাকায় শহরের আখড়া পয়েন্ট থেকে অবাদে চলাচল করছে অটোরিক্সা। বাস বন্ধ হওয়ার সুযোগে অটোরিক্সা ও সিএনজি গুলো তাদের ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে। ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে যাত্রীদের সঙ্গে অটোরিক্সা চালকদের সাথে বাক-বিতন্ডা লেগেই আছে। জেলা শহর কিবরীয়া ব্রিজ পয়েন্ট থেকে গত সোমবার পর্যন্ত অটোরিক্সার ভাড়া ছিল ৫০ টাকা, ইমামবাড়ির ভাড়া ছিল ৩০ টাকা, এখন ৫০ ও ৭০ টাকা। এমনকি স্থানভেদে ১০ টাকা থেকে ২০ টাকা বেশি ভাড়া গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের। রেজাউল করিম নামে এক ব্যক্তি বলেন, গত কয়েকদিন আগেও হবিগঞ্জ থেকে নবীগঞ্জ শহরের এসেছি ৫০ টাকা ভাড়া দিয়ে। কিন্তু আজ গ্যাস বন্ধ তেলে চলতে হয় বিভিন্ন অজুহাতে ভাড়া দিতে হয়েছে ৭০-৮০ টাকা। এছাড়া অটোরিক্সা ভাড়াও নিয়ন্ত্রণহীন। বিকল্প কোন মাধ্যম না থাকায় বাধ্য হয়ে যেতে হচ্ছে বেশি ভাড়া দিয়ে। নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ রোডের বাস শ্রমিক সমিতির সভাপতি আব্দুস সামাদ অভিযোগ করে বলেন, অটোরিক্সার জন্য তারা ঠিক মতো গাড়ি যেমন চালাতে পারছে না সেইভাবে আয় করতে না পারায় তাদের ছেলে মেয়েদের না খেয়ে থাকতে হচ্ছে। এমনকি তাদেরকে মালিক পক্ষ থেকে কোন ধরনের সহযোগিতা না করায় তাদের পক্ষে বাস চালানো সম্ভব হচ্ছে না বিধায় তারা বাস বন্ধ করে দিয়েছেন। হবিগঞ্জ জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সজীব আলী বলেন, আঞ্চলিক সড়কে অটোরিক্সা বন্ধ না করা হলে দুরপাল্লার বাস চালিয়ে পরিবহন শ্রমিকরা পেটের ভাত যোগাতে না পারলে বাস চালিয়ে কি করবে। এ ব্যাপারে মালিক শ্রমিক সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ থাকবে। হবিগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শংঙ্ক শুভ রায় বলেন, আমরা অচিরেই শ্রমিকদের সাথে বসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। তবে প্রশাসন অতি শীঘ্রই অটোরিক্সা বন্ধ না করলে এই রুটটি চালু রাখা আমাদের জন্য কষ্ট সাধ্য হবে। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন বলেন, বাস বন্ধের বিষয়ে মালিক-শ্রমিক কোন পই আমার সাথে এখন পর্যন্ত যোগাযোগ করে নাই। তবে বিষয়টি আমি দেখছি, যাতে অতি শীঘ্রই বাস চলাচল চালু করা যায়।

Login to post comments
  1. LATEST NEWS
  2. Trending
  3. Most Popular